শিরোনাম :
নবীনগর শিবপুরে জশনে জুলুছে র‍্যালী আলোচনা সভ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত । নবীনগর বাজারে মোবাইল কোর্টের অভিযান সেভ দ্যা ফিউচার ফাউন্ডেশনের সংবর্ধনা পেলেন সাবেক ছাত্রনেতা এম. নাঈমুর রহমান নবীনগরের মুক্তি প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দেশ প্রেমিক জনতার দল নবীনগর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন। নবীনগরে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত আশুগঞ্জে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত নাটঘর মিনিবার ফুটবল টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল খেলায় চ্যাম্পিয়ন চড়িলাম ফুটবল একাদশ। নবীনগর নারুই গ্রামে ফিশারিজ পদ্ধতিতে মৎস্য উৎপাদনে এলাকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন,শিল্পপতি রিপন মুন্সি । নবীনগরে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ চার নারী আটক
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৩১ অপরাহ্ন

নবীনগর গুড়িগ্রামে থাইল্যান্ডি তরমুজ চাষ করে লাভবান প্রবাসী দুই ভাই

প্রতিনিধির নাম / ২৩৬ বার
আপডেট : শনিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২৩

এই মুহূর্তে চলছে তরমুজের খড়া মৌসুম, বাজারে তরমুজের কোনো কমতি না থাকলেও দাম এখনও অনেক চওড়া।

এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কয়েক বছরের তুলনায় এবার তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। তাই তরমুজ চাষ করে লাভবান হয়েছেন চাষিরা। তেমনি একজন সফল তরমুজ চাষি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বিটঘর ইউনিয়ন গুড়িগ্রামের কৃতি সন্তান হাজ্বী নান্নু মিয়ার প্রবাসী দুই ছেলে আক্তার  ও মামুন  বাড়ির পাশে ৫০ শতক  জমিতে,থাইল্যান্ডি তরমুজের চাষ করেছেন ।

 

এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কয়েক তুলনায় এবার তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে।

 

তার মাচায় এখন ঝুলছে দুই রকমের থাইল্যান্ডি

ছোট বড় আকারের সুস্বাদু তরমুজ। এখন সেগুলো পাইকারি দরে বিক্রির অপেক্ষায় দিন গুনছেন এই চাষি।

থাইল্যান্ডি জাতের তরমুজের উপরের রং হলুদ ও ব্ল্যাক-প্রিন্স জাতের তরমুজের উপরের রং গাড় সবুজ। দুটি জাতের তরমুজের ভিতরের রং গাড়ো লাল ও হলুদ দুই রকম ,যা খেতে খুব সুস্বাদু। চাষি জানান এই তরমুজ চাষে কোনো লোকসান হয়না,  বীজ বপনের দুই মাস পরেই ফল পাওয়া যায়, খরচ তুলনামূলক কম হওয়ায় লাভ হয় বেশী ,তাই নান্নু হাজীর ছেলেরা মাঠে অন্য চাষ বাদ দিয়ে এবার তরমুজ চাষ করেছেন।

 

সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়,হাজ্বী নান্নু মিয়ার ছেলে আক্তার ও মামুন প্রবাসে থাকে।প্রবাসে তারা তরমুজ ব্যাবসা করে।প্রবাস থেকে তারা তরমুজ চাষ দেখে বাড়িতে ছুটিতে এসে প্রতিবছর তরমুজ চাষ করে।গত বছর ও তারা তরমুজ চাষ করে সফল হয়েছে।তাই এ বছর ৫০ শতক  জমিতে তরমুজ চাষ করেছে এবং লাভ হওয়ার আসা গুনছে।

 

হাজ্বী নান্নুর ছেলে আক্তার  বলেন, এই তরমুজ চাষে কোনো লোকসান হয়না,বীজ বপনের দুই মাস পরেই ফল পাওয়া যায়, খরচ তুলনামূলক কম হওয়ায় লাভ হয় বেশী তাই তারা অন্য চাষ বাদ দিয়ে এবার তরমুজ চাষ করেছেন।এই ৫০  শতক  জমিতে থাইল্যান্ডি জাতের তরমুজ চাষে তার ব্যায় হয়েছে প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা।তারা আশাবাদী এই উৎপাদিত তরমুজ, প্রায় সারে চাঁর লাখ টাকারও বেশী বিক্রি করতে পারবেন।

 

তার পাশাপাশি হাজ্বী নান্নু মিয়ার প্রবাসী  ছেলেরা বাড়ির পাশে নানা রকমের ফল ফলাদি বাগান চাষ করে সকলের নজর কেড়েছে ।

Facebook Comments Box


এ জাতীয় আরো সংবাদ